Saturday, 31 December 2011

বাঁকা চোখে : বোবাদের নিয়ে ড. কামালের মহাচিন্তা














স্টাফ রিপোর্টার
ড. কামাল হোসেন মনে করেন বর্তমান সংসদ একটি বোবা সংসদ। সংসদের সব এমপিও বোবা। এই বোবা সংসদ ও এমপিদের নিয়েই তার যত দুশ্চিন্তা। দুশ্চিন্তা আর আক্ষেপের কথা প্রকাশ করে গণফোরাম সভাপতি এই আইনজীবী বলেছেন, সারাদেশের ভোটারদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত তিনশ’ সদস্য নিয়ে জাতীয় সংসদ গঠিত হলেও এখানে মূলত একজনের (প্রধানমন্ত্রী) ইচ্ছা-অনিচ্ছা আর আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটে। সংসদ নেতা বা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে যেতে পারে—এ ভয়ে অন্যান্য সদস্য কথাই বলেন না। তিনি বলেন, সংসদে তিনশ’ লোক বোবার মতো বসে থাকে। কাজেই এটি একটি বোবা সংসদ। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায় ৪ মিনিটে ঢাকা ভাগ বিল পাস ও তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে সংবিধান সংশোধনী বিল পাস হয় এই সংসদে। দেশের শেয়ারবাজার থেকে লাখ লাখ ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীর হাজার হাজার কোটি টাকা লুট হয়ে গেল, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতি, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশাহারা দেশের মানুষ, সন্ত্রাস-চাঁদাবাজি ও টেন্ডারবাজিতে নাকাল ব্যবসায়ীরা অথচ বোবা সংসদ সদস্যরা এ নিয়ে সংসদে টুঁ শব্দটিও করেন না। গত ১০ ডিসেম্বর গণফোরামের কাউন্সিল অধিবেশনে সভাপতির বক্তব্যে এমন উপলব্ধির কথাই বর্ণনা করেন প্রবীণ এই আইনজ্ঞ।
দেশের বিশিষ্ট নাগরিক ও রাজনীতিবিদদের উপস্থিতিতে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ওই অনুষ্ঠানে গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন এমপিদের উদ্দেশে আরও বলেন, মাত্র ৪ মিনিটে ঐতিহ্যবাহী ঢাকা শহর দুই ভাগ করার বিল জাতীয় সংসদে পাস হয়ে গেল। নজিরবিহীন এ ঘটনার সময় আপনারা সবাই চুপ করে বসে থাকলেন। কেউ মুখ খুলে পক্ষে কিংবা বিপক্ষে একটি যুক্তিও দেয়ার সাহস পেলেন না। লাখ লাখ যুবকের সর্বনাশ করে শেয়ারবাজারের মুলধন লুট হয়ে গেল অথচ আপনারা সাহস করে কেউ একটি কথাও বললেন না। আপনারা সবাই বোবা হয়ে বসে থাকলেন অথচ মহান আল্লাহতায়ালা চোখ দিয়েছেন দেখার জন্য, কান দিয়েছেন শোনার জন্য আর মুখ দিয়েছেন অন্যায়ের প্রতিবাদ করার জন্য। আপনারা সংসদে কিছুই বললেন না। তিনি এমপিদের উদ্দেশে প্রশ্ন করে বলেন, আল্লাহ কি আপনাদের বোবা করে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন?
জাতীয় সংসদ নিয়ে খ্যাতিমান আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের এই মন্তব্যের আগেও সুপ্রিমকোর্টের একজন বিচারপতি বোবা সংসদের বিষয়ে বলেছেন, জাতীয় সংসদে এমপিদের দায়িত্ব হচ্ছে আইন প্রণয়ন করা। অথচ জাতীয় সংসদে যারা যাচ্ছেন, তারা আইন সম্পর্কে কিছুই জানে না। তারা শুধু ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ বলা ছাড়া আর কিছুই জানেন না। আইন মন্ত্রণালয় থেকে কেরানিরা যে ড্রাফট করে দেন, জাতীয় সংসদে এমপিরা তা টেবিল চাপড়ে হো হো করে পাস করে দেন। উত্থাপিত আইনের খসড়া জাতির কতটুকু উপকারে আসবে এটা দেখা বা ভাবার সময় তারা পান না।
http://www.amardeshonline.com/pages/details/2011/12/17/122523

Friday, 9 December 2011

র্যাব পুলিশের নামে গুম ব্যক্তিদের খোঁজ মেলেনি


আলাউদ্দিন আরিফ

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে গুম অব্যাহতভাবে বেড়েই চলছে। চলতি বছরের শেষ দিনগুলোতে কমপক্ষে ১০০ ব্যক্তি গুম হয়েছেন বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। অপহরণ ও গুম হওয়া ব্যক্তিদের কিছু ক্ষেত্রে লাশ উদ্ধার হচ্ছে, কোনো কোনো ক্ষেত্রে খোঁজই মিলছে না। এ পরিস্থিতিতে মানুষের মধ্যে দেখা দিয়েছে গুম ও অপহরণ আতঙ্ক। প্রশ্ন উঠেছে এরপর টার্গেট কে? ওয়াকিবহাল ব্যক্তিরা বলছেন, আজ ১০ ডিসেম্বর বিশ্ব মানবাধিকার দিবস। এ সময়েও গুম হয়ে যাওয়া এসব মানুষের স্বজনরা দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন প্রিয়জনদের সন্ধানে। আইনশৃঙ্খলা
রক্ষাকারী বাহিনীর অফিস, মানবাধিকার সংস্থার অফিস, রাজনৈতিক নেতার দফতর, পত্রিকার অফিস থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্থানে ধর্না দিয়েও স্বজনের কোনো খোঁজ পাচ্ছেন না তারা। জানতে পারছেন না তাদের স্বজন বেঁচে আছে না মরে গেছে। গুম হওয়া ব্যক্তিরা জীবিত না থাকলে তাদের অন্তত লাশ ফেরত চাইছেন তারা সংবাদ সম্মেলন করে। সে অধিকারটুকু থেকেও তারা আজ বঞ্চিত।
বিশিষ্টজনরা বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে মানবাধিকার উঠে গেছে আমাদের দেশ থেকে। মানুষের বেঁচে থাকারও অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে ক্রসফায়ার, এনকাউন্টার, বন্দুকযুদ্ধসহ নানা নামে চলছে মানুষ হত্যা। র্যাব-পুলিশ পরিচয়ে তুলে নেয়ার পর মাসের পর মাস পেরিয়ে গেলেও গুম হওয়া ব্যক্তির হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এ অবস্থায় দেশে মানবাধিকারের বাণী এখন নিভৃতে কাঁদছে।
জানা গেছে, ২৬ অক্টোবর থেকে ২০ নভেম্বর পর্যন্ত এক মাসেরও কম সময় শুধু মতিঝিল থেকেই ৭ জন গুম হওয়ার বিষয়ে মামলা ও জিডি হয়েছে। তাদের মধ্যে ৬ জনের নাম জানা গেছে। এরা হলেন, ফেনীর সোনাগাজী উপজেলা যুবলীগ নেতা সারোয়ার জাহান বাবুল, ভোলার দিদার, বাহার ও জসিম, রামপুরার আরিফ ও মতিঝিলের জুয়েল। র্যাব পরিচয়ধারীদের হাতে গত ২৮ অক্টোবর হাতিরপুল থেকে গুম হয়েছেন ঢাকা বিশ্বদ্যািলয়ের ছাত্র শামীম হাসান সোহেল, ৪১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি নূর মোহাম্মদ হাজী ওরফে নুরু হাজী, তার জামাতা আবদুল মান্নান ও জামাতার ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি ইকবাল। নুরু হাজী গুম হওয়ার দেড় মাসের মাথায় গুম হয়েছেন মান্নান ও ইকবাল। কোরবানীর ঈদের পরদিন সূত্রাপুর থেকে গুম হয়েছেন ব্যবসায়ী মমিন হোসেন। গুম হয়েছেন গার্মেন্ট ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম, বরিশালের উজিরপুরের বিএনপি নেতা ও ঢাকার ব্যবসায়ী হুমায়ন খান। এছাড়া ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে গত কয়েক মাসে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী পরিচয়দানকারীদের হাতে গুম হয়েছেন। র্যাব পুলিশ রহস্যজনক কারণে এসব গুমের মামলা তদন্ত করছে না। তাদের পরিবারের লোকজনও জানতে পারছে না যে তারা বেঁচে আছে না মরে গেছে।
গত ২৮ নভেম্বর গুম হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইআর) ছাত্র ও ছাত্রদল নেতা শামীম হাসান সোহেল। গুম হওয়ার ১২ দিন পরও তার সন্ধান মেলেনি। সোহেলের মা, ভাইসহ আত্মীয়স্বজনরা অভিযোগ করেছেন, সাদা পোশাকে র্যাব পরিচয় দিয়ে তাকে ধরে নেয়া হয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতিতে এক সংবাদ সম্মেলনে সোহেলের ভাই সাইমুন ইসলাম জানান, গত ২৮ নভেম্বর রাত ১০টায় সোহেলের সঙ্গে সর্বশেষ তার মোবাইল ফোনে কথা হয়েছে। ওই সময় সোহেল জানায় সে শাহবাগে আছে। এরপর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে, ২৮ নভেম্বর রাত ১২টার দিকে হাতিরপুল এলাকা থেকে সাদা পোশাকে র্যাব সদস্যরা সোহেলকে তুলে নিয়ে যায়। তার সঙ্গে আরও চারজনকে তুলে নিয়ে যায় তারা। সোহেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইইআরে ২০০০-০১ সেশনে অনার্সে ভর্তি হন। ২০০৮ সালে অনার্স পাস করেন তিনি। বর্তমানে তিনি ওই ইনস্টিটিউটের মাস্টার্সের ছাত্র। ছাত্রদলের সূর্যসেন হল শাখার তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক সোহেল। তার গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালীর কলাপাড়া থানার পাঁচজুনিয়া গ্রামে। সোহেলের নিখোঁজের ঘটনায় ৩ ডিসেম্বর শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে করেছে তার পরিবার। র্যাব কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা সোহেলকে আটকের বিষয়টি অস্বীকার করেন।
থানায় করা সাধারণ ডায়েরির সূত্রে জানা গেছে, গত ১৮ অক্টোবর র্যাব পরিচয়ে অপহরণের শিকার হয়েছেন ৪১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি নূর মোহাম্মদ হাজী ওরফে নূরু হাজী (৭৫)। হাজীর মেয়ে স্বপ্নার করা জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে গত ১৮ অক্টোবর রাত একটার দিকে সাদা পোশাকে ২০-২৫ জন যুবক সাভারের কাতলাপুর পালপাড়ার বাড়িতে ঢোকে। তারা নিজেদের র্যাব পরিচয় দিয়ে হাজীকে গাড়ি তুলে নেয়। এরপর থেকে হাজী এখনও নিখোঁজ। র্যাব ও পুলিশ তাকে ধরে নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করছে।
গত ৩ ডিসেম্বর শনিবার ঢাকার শ্যামলী এলাকা থেকে কয়েকজন যুবক হাজীর বড় মেয়ের জামাই আবদুল মান্নান ও ইকবাল হোসেন নামের দুই যুবককে ধরে নিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তাদের ধরে নেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেনি র্যাব ও পুলিশ। পরিবারের বাসিন্দারা জানান, র্যাব পরিচয়ে শনিবার রাতে কয়েক যুবক হাজীর মেয়ের জামাই জাহাঙ্গীর আলমকে খোঁজ করে। তারা জাহাঙ্গীরকে না পেয়ে আবদুল মান্নান ও ইকবালকে তুলে নিয়ে যায়। এখন পর্যন্ত তারা নিখোঁজ রয়েছেন।
গত ৬ ডিসেম্বর ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলার বাসিন্দা আবদুর রহিম মানিক বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে সংবাদ সম্মেলনে জানান, পুলিশ পরিচয় দিয়ে গত ২৬ অক্টোবর তার ভাই সারোয়ার জাহান বাবুলকে ঢাকার ফকিরাপুল থেকে তুলে নেয়া হয়েছে। ঘটনার ৪৫ দিন পার হয়ে গেলেও তার কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। মানিক আরও জানান, তার ভাই ফেনী জেলার সোনাগাজী উপজেলা যুবলীগের নেতা। ঘটনার দিন সোনাগাজী থানায় জনৈক নুরুন্নবী লিটনের দায়ের করা একটি মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন নেয়ার জন্য ঢাকায় আসে। ওইদিন রাত ৮টায় ফকিরাপুলে হোটেল আসরের সামনে থেকে পুলিশ পরিচয়ে কয়েক যুবক তাকে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। পরে ঢাকার বিভিন্ন থানা, র্যাব অফিস, ডিবি অফিসসহ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ নিয়েও তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। গত ২৭ অক্টোবর মানিক একটি জিডি করেন এবং ২৯ অক্টোবর ৬ জনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। মামলাটি এখন ডিবি পুলিশ তদন্ত করছে। কিন্তু পুলিশ এখনও বাবুলের কোনো হদিস বের করতে পারেনি। সংবাদ সম্মেলনে মানিক দাবি করেন, তার ভাই বেঁচে না থাকলে অন্তত তার লাশটি যেন পরিবারকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।
ভাইকে বিদেশ যাওয়ার ফ্লাইটে তুলে দেয়ার জন্য ভোলা থেকে দিদার, বাহার ও জসিম নামে ৩ যুবক ঢাকায় আসে। ওইদিন রাতেই র্যাব পরিচয়ে তাদেরকে গুম করা হয়। ১৭ নভেম্বর এ বিষয়ে মতিঝিল থানায় একটি মামলা হয়েছে। তাদের মধ্যে জসিমের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। দিদার ও বাহারের এখন পর্যন্ত কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। এখন মামলাটি তদন্ত করছে ডিবি পুলিশ।
এছাড়াও নভেম্বর মাসে মতিঝিল থেকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নেয়া হয়েছে আরিফ ও জুয়েল নামে দু’ব্যক্তিকে। জানা গেছে, তাদের মধ্যে আরিফ রামপুরার গ্রামীণ সৌন্দর্যের মালিক ও জুয়েল শতাব্দী সেন্টারের নিরাপত্তারক্ষী। আরিফ নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে ২০ নভেম্বর মতিঝিল থানায় একটি মামলা হয়েছে বলে জানা গেছে।
গত ২ অক্টোবর রাজধানীর দক্ষিণখান এলাকার গার্মেন্ট ব্যবসায়ী সাইফুল ইসলাম অপহরণের শিকার হন। দু’মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। পুরাতন ৭৬/এ, পশ্চিম আশকোনা দক্ষিণখান এলাকার মরহুম আবুল হোসেন মিয়ার ছেলে সাইফুল ঘটনার দিন অফিসের কাজে বাসা থেকে গুলশানে যান। সন্ধ্যা ৭টায় গুলশানে থাকা অবস্থায় তার সঙ্গে কথা বলেন মা এবং বোনের সঙ্গে কথা বলেন সাইফুল। এরপর থেকে তার দুটি মোবাইল ফোন ০১৬৭৫০৪৪৮৯৯ ও ০১৮৯১৯৯৬৮১৯ বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। পরিবারের লোকজন জানতে পারছেন না সাইফুল বেঁচে আছে, না মরে গেছে।
৮ নভেম্বর রাজধানীর সূত্রাপুর থেকে অপহরণের শিকার হন সূত্রাপুর এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. মমিন হোসেন (২৮)। ১০ নভেম্বর মমিনের স্বজনরা সূত্রাপুর থানায় জিডি করেন। মমিনের স্বজনরা জানান, ঘটনার দিন সকাল ১০টার দিকে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেয়ার সময় মমিনের মোবাইল নম্বরে (১৯১৩৭৪৯৫৫৮, ০১৮৩৪০৮৯৭৩৫) অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি ফোন করলে সে দ্রুত বাসা থেকে বের হয়ে যায়। এর কিছুক্ষণ পরই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তাকে গুম করা হয়। বাসা থেকে বের হওয়ার এক ঘণ্টা পর থেকেই মমিনের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। মমিনের ভগ্নিপতি মো. আলম জানান, কোরবানির ঈদের আগে মমিনের বিয়ের কাবিন হয়েছে। ঈদের তিন দিন পর অনুষ্ঠান হওয়ার কথা। মমিন নিজেই বিয়ের বাজার-সদাই করেছে। কোরবানির ঈদের পরদিন অজ্ঞাত মোবাইল থেকে তার নম্বরে ফোন আসার পর বেরিয়ে যায় সে। এখন পর্যন্ত সে নিখোঁজ। র্যাব ও পুলিশ মমিনের মোবাইল ফোনের কললিস্ট সংগ্রহ করেছে। কিন্তু তদন্তে অগ্রগতি দেখাচ্ছে না। মমিনের অপর এক আত্মীয় জানান, র্যাব-পুলিশই মমিনকে অপহরণ করেছে। তা না হলে কললিস্ট পাওয়ার পরও মমিনের বিষয়ে কোনো তদন্ত করেনি কেন।
২৪ অক্টোবর রাজশাহী মহানগরীর লক্ষ্মীপুর ভাটাপাড়া জামে মসজিদের ইমাম ও গোদাগাড়ীর পালপুর ধরমপুর মহাবিদ্যালয়ের প্রভাষক আমিনুল ইসলামকে র্যাব পরিচয়ে বাসা থেকে তুলে নেয়া হয়েছে। আমিনুল ইসলামের আত্মীয়রা জানান, ঘটনার দিন রাতে ভাটাপাড়ার বাসায় প্রবেশ করে র্যাব পরিচয়ে সাদা পোশাকে অজ্ঞাত কয়েক যুবক তাকে তুলে নেয়। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ রয়েছেন।
২২ সেপ্টেম্বর নিখোঁজ হয়েছেন রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানাধীন মীরহাজিরবাগ এলাকা থেকে ৮৭ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি কাজী আতাউর রহমান লিটু। এ ব্যাপারে ২৩ সেপ্টেম্বর লিটুর স্ত্রী রাশিদা বেগম যাত্রাবাড়ী থানায় একটি জিডি করেছেন। জিডিতে তিনি অভিযোগ করেছেন, ২২ সেপ্টেম্বর বিকাল পাঁচটা থেকে সাড়ে পাঁচটার মধ্যে আতাউর রহমান দয়াগঞ্জের দিকে যান। সেখানে সাদা পোশাকধারী কিছু লোক তাকে তুলে নিয়ে যায়। ওই জিডি পুলিশ তদন্ত করেনি বলে পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়।
৩১ জুলাই গেণ্ডারিয়ার দয়াগঞ্জ এলাকা থেকে মিজান, জুয়েল সর্দার, রাজীব নামে তিন যুবককে সাদা পোশাকে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে আটক করা হয়। বেশ কিছু মানুষের সামনে তাদের আটক করে হাতে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়। এ ঘটনার ৫ দিন পর ৫ আগস্ট উদ্ধার হয় তিন যুবকের লাশ। গাজীপুরের পুবাইল এলাকা থেকে উদ্ধার হয় মিজান ও জুয়েল সর্দারের লাশ এবং মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান এলাকার ঢাকা-মাওয়া সড়ক থেকে উদ্ধার হয় রাজীবের লাশ।
৮ এপ্রিল বিকালে সূত্রাপুর থানাধীন ফরাশগঞ্জ ক্লাব কমিউনিটি সেন্টার এলাকা থেকে সাদা পোশাকে র্যাব পরিচয়ে তুলে নিয়ে যায় ব্যবসায়ী তাবির উদ্দিন আহমেদ রানাকে। বড় ভাইয়ের বৌভাত অনুষ্ঠান থেকে সাদা পোশাকে র্যাব পরিচয়ে তুলে নেয়ার পর এখন পর্যন্ত তার হদিস পাওয়া যায়নি। স্বজনরা র্যাবের বিভিন্ন ক্যাম্প ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে খোঁজ নিয়েছেন। কিন্তু কেউ তার সন্ধান দিতে পারেননি। সূত্রাপুর থানায় এ ব্যাপারে জিডি করা হয়েছে।
ডিবি পুলিশ পরিচয়ে ঢাকার মালিবাগ এলাকা থেকে বরিশালের উজিরপুরের বিএনপি নেতা হুমায়ুন খানকে তুলে নেয়া হয় গত বছরের ২৩ নভেম্বর। ঘটনার এক বছরের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও হুমায়ুনের কোনো সন্ধান পায়নি তার পরিবার। র্যাব-পুলিশও তাকে উদ্ধারের বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে দাবি করেছে তার পরিবার। গত বছর ২৩ নভেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় হুমায়ুন খান তার ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে ঢাকার সূত্রাপুরের ৪৫/ক, ঢালকানগর, ফরিদাবাদের বাসা থেকে ১০৯৩, মালিবাগ চৌধুরীপাড়ায় তার বন্ধু মফিজুলের বাসায় যান। মালিবাগ থেকে সাদা পোশাকের কয়েকজন লোক ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে হুমায়ুনকে গাড়িতে করে তুলে নিয়ে যায়। এরপর থেকে তিনি নিখোঁজ। তার ছোট ভাই মঞ্জু খান বাদী হয়ে প্রথমে জিডি এবং ১৩ ডিসেম্বর রামপুরা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত হুমায়ুনের সন্ধান মেলেনি বা মামলারও অগ্রগতি হয়নি।
মানুষ গুম হয়ে যাওয়ার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান বলেন, মানবাধিকার কমিশনে বহু মানুষ এসে নালিশ করেন। কারও স্বামী, কারও ভাই, কারও বাবা, কারও ছেলেকে সাদা পোশাকধারী লোকেরা ধরে নিয়ে গুম করেছে। কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। মানবাধিকার কমিশন র্যাব-পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করলেও শুধু বলা হয়—দেখছি স্যার। এর বেশি কিছু করারও থাকে না। তিনি জানান, পুলিশের ইউনিফর্ম ছাড়া গ্রেফতার বা আটক অভিযান বন্ধের জন্য সরকারের কাছে মানবাধিকার কমিশনের পক্ষ থেকে বার বার বলা হয়েছে। গ্রেফতার অভিযান কখনও সাদা পোশাকে হওয়া উচিত নয়। ইউনিফর্ম লাগিয়ে পুলিশের পোশাকে আটক বা গ্রেফতার অভিযান চালাতে হবে। এতে গ্রেফতার ব্যক্তির স্বজনরা জানতে পারেন কোন সংস্থা কী অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করেছে।
পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) হাসান মাহমুদ খন্দকার বলেন, পুলিশ-র্যাবের নাম করে অপহরণের ঘটনা ঘটছে। তবে এসব ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী জড়িত নয়। অপরাধীরাই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নাম ব্যবহার করছে। এটা অপরাধীদের একটা কৌশল। যতগুলো ঘটনা ঘটেছে, তার তদন্ত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি ঘটনা তদন্ত করা হয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, র্যাব-পুলিশ এসব ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়। তিনি আরও বলেন, আসামি গ্রেফতারের বিষয়ে হাইকোর্টের কিছু নির্দেশনা রয়েছে। তারা স্ব-স্ব ইউনিটগুলোকে ওই নির্দেশনা মেনে ইউনিফর্ম পরে, ক্ষেত্রবিশেষে নিজেদের পরিচয়পত্র দেখিয়ে আসামি গ্রেফতার করার জন্য বলেছেন।